1. altafbabu1@gmail.com : news :
  2. altafbabu1@gmail.com : Satkhira Times : Satkhira Times
July 24, 2021, 9:30 pm
Title :
গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে সাতক্ষীরা অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক সাতক্ষীরায় ২৪ ঘন্টায় আরও ৪ জনের মৃত্যু কালিগঞ্জে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হয়রানী ও অব্যহত হুমকীর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন কলারোয়ায় নতুন করে ৩ মহিলাসহ ৫ জনের করোনা শনাক্ত : শনাক্তের হার ২৩ ভাগ কালিগঞ্জ গৃহবধু হত্যার ঘটনায় শ্বশুর ও শাশুড়ীকে আটক করেছে পুলিশ টোকিও অলিম্পিকে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দিলেন সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান শেখ বশির আহম্মেদ মামুন করোনাকালীন সময়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণে অবদান রাখতে হবে-ইউএনও খন্দকার রবিউল ইসলাম জাতিসংঘে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীতা বিষয়ক রেজুলেশন উত্থাপন করলো বাংলাদেশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হতে অক্সিজেন সিলিন্ডার পাচারকারী চক্রের ৬ সদস্য আটক কিংবদন্তী গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর আর নেই!

সব অভিযোগ অসত্য ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : সিইসি

  • আপডেট সময় Friday, December 25, 2020

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে ৪২ বিশিষ্ট নাগরিকের উত্থাপিত গুরুতর অসদাচরণ ও আর্থিক অনিয়মের অভিযোগগুলোকে অসত্য, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে সিইসি বলেন, ‘জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হতে পারে, তাই বিষয়টি স্পষ্ট করতে এ সংবাদ সম্মেলন। ইসিকে দায়ী করে যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে, তা অনভিপ্রেত ও আদৌ গ্রহণযোগ্য নয়।’

লিখিত বক্তব্যের বাইরে সিইসি সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্ন নেননি। সংবাদ সম্মেলনে সিইসি ছাড়াও নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। তবে নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে ৪২ বিশিষ্ট নাগরিকের রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদনে যাঁর অভিযোগ যুক্ত ছিল, সেই নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার উপস্থিত ছিলেন না।

গত ১৪ ডিসেম্বর কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়ম ও গুরুতর অসদাচরণের অভিযোগ এনে রাষ্ট্রপতির কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন ৪২ বিশিষ্ট নাগরিক। চিঠিতে ওই সব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ‘সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল’-এর মাধ্যমে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

গত ১৯ ডিসেম্বর এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানানো হয়। ওই সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়ার আগ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনারদের দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকতে অথবা নৈতিক কারণে স্বেচ্ছায় পদত্যাগের আহ্বান জানানো হয়।

গত ২০ ডিসেম্বর বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকরা বক্তব্য জানতে চাইলে সিইসি বলেছিলেন, ‘এটি রাষ্ট্রপতি দেখছেন, এ বিষয়ে আমার কিছু বলা ঠিক হবে না।’

নির্বাচনী প্রশিক্ষণের জন্য বক্তৃতা না দিয়ে বিশেষ বক্তা হিসেবে সম্মানী গ্রহণের যে অভিযোগ চিঠিতে করা হয়েছে, সে বিষয়ে সিইসি বলেন, প্রশিক্ষণ ব্যয়ে আর্থিক অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই।

আগের কমিশনের অভিজ্ঞতার আলোকে ছয়-সাত লাখ জনবলের দক্ষতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৫ জন বিশেষ বক্তা, কোর্স উপদেষ্টা ও অন্যান্য প্রশিক্ষকসহ নির্বাচনী প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা এবং বাজেট প্রণয়ন করা হয়। এ পরিকল্পনা কমিশন অনুমোদন করে। কর্মপরিকল্পনায় ১৫ জন বিশেষ বক্তার সম্মানী বাবদ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এক কোটি চার লাখ টাকা এবং পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জন্য ৪৭ লাখ ৭০ হাজার টাকা সংস্থান রাখা হয়। দ্য চিফ ইলেকশন কমিশনার (রেমুনারিশন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) অর্ডিন্যান্স-১৯৮৩ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনাররা সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের মতো সুবিধা পান বিধায় অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে নির্ধারিত হারেই এই কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৫ জন বিশেষ বক্তা প্রশিক্ষণ প্রদান করে সম্মানী গ্রহণ করেছেন। এ ছাড়া প্রশিক্ষণ কোর্সের উপদেষ্টা হিসেবে ইসির সচিব সম্মানী নিয়েছেন এবং প্রশিক্ষণ খাতের অব্যবহৃত অর্থ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কর্তৃক ট্রেজারিতে ফেরত দেয়া হয়েছে।

কর্মচারী নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে সিইসি বলেন, ‘নিয়োগপ্রক্রিয়াটি ছিল নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ ও দুর্নীতিমুক্ত। নিয়োগের যাবতীয় প্রক্রিয়া যথাযথভাবে সম্পন্ন করে নিয়োগের চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় কোনো মহল থেকে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। কোনো প্রমাণ ছাড়াই চার কোটি চার লাখ টাকা দুর্নীতি করা হয়েছে মর্মে যে অভিযোগ করা হয়েছ, তা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ভিত্তিহীন।’

নিয়মবহির্ভূতভাবে বিলাসবহুল গাড়ি ব্যবহার করার অভিযোগ প্রসঙ্গে সিইসি কে এম নুরুল হুদা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন তাদের প্রাধিকারভুক্ত একটি জিপ (পাজেরো স্পোর্টস) ও একটি কার (টয়োটা করোলা) এবং তার জন্য নির্ধারিত পরিমাণ জ্বালানি ব্যবহার করে। নতুন গাড়ি বিলাসবহুল তো নয়ই, অতি সাধারণ মানের। নির্বাচন কমিশন গাড়ি বিলাস করেনি, বরং তিন বছর ছয় মাস প্রাধিকারভুক্ত গাড়ি পায়নি। তারা প্রকল্প থেকে সচিবালয়ের জন্য দেওয়া গাড়ি শেয়ার করে ব্যবহার করেছেন মাত্র। কাজেই নিয়মবহির্ভূতভাবে তিনটি বিলাসবহুল গাড়ি ব্যবহারের অভিযোগ সম্পূর্ণ অসত্য ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।’

ইভিএম ক্রয় ও ব্যবহারে অসদাচরণ ও অনিয়মের অভিযোগ প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন ইভিএম আমদানি করেনি। ২০১৮ সালে একনেকে ইভিএম প্রকল্প অনুমোদনের পর পিপিআর, ২০০৮-এর বিধান-পদ্ধতি অনুসরণ করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মাধ্যমে তা ক্রয় করা হয়েছে। ইভিএম কেনার কোনো বিল কমিশনের কাছে ন্যস্ত হয় না। এ বিল সরকারিভাবে সরাসরি সেনা কর্তৃপক্ষকে পরিশোধ করা হয়। এ কাজে নির্বাচন কমিশন কোনো আর্থিক লেনদেনের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকে না। এখানে দুর্নীতির কোনো প্রশ্নই ওঠে না।’

জাতীয় ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে গুরুতর অসদাচরণ অনিয়মের অভিযোগ খণ্ডন করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ বিভিন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে নির্বাচন কমিশন। বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা একাদশ সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছেন। নির্বাচন নিয়ে তাঁরা কোনো অভিযোগ তোলেননি। নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষণ দল সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেছে। ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়াতেও কোনো গুরুতর অনিয়ম ও অসদাচরণের কোনো বিষয় প্রচার করা হয়নি।

নির্বাচনের প্রতি জনগণের আস্থা চলে গেছে—এমন মন্তব্য ভিত্তিহীন দাবি করে সিইসি কে এম নুরুল হুদা বলেন, তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্যে জাতীয় সংসদ এবং স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2021 satkhiratimes24.com
Theme Customized By BreakingNews