1. altafbabu1@gmail.com : news :
  2. altafbabu1@gmail.com : Satkhira Times : Satkhira Times
July 24, 2021, 9:28 pm
Title :
গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে সাতক্ষীরা অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক সাতক্ষীরায় ২৪ ঘন্টায় আরও ৪ জনের মৃত্যু কালিগঞ্জে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হয়রানী ও অব্যহত হুমকীর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন কলারোয়ায় নতুন করে ৩ মহিলাসহ ৫ জনের করোনা শনাক্ত : শনাক্তের হার ২৩ ভাগ কালিগঞ্জ গৃহবধু হত্যার ঘটনায় শ্বশুর ও শাশুড়ীকে আটক করেছে পুলিশ টোকিও অলিম্পিকে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দিলেন সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান শেখ বশির আহম্মেদ মামুন করোনাকালীন সময়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণে অবদান রাখতে হবে-ইউএনও খন্দকার রবিউল ইসলাম জাতিসংঘে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীতা বিষয়ক রেজুলেশন উত্থাপন করলো বাংলাদেশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হতে অক্সিজেন সিলিন্ডার পাচারকারী চক্রের ৬ সদস্য আটক কিংবদন্তী গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর আর নেই!

সাতক্ষীরা সদরের মৃগীডাঙ্গা গ্রামের ফনুর অত্যাচার নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে চায় গ্রামবাসি

  • আপডেট সময় Friday, March 5, 2021

স্টাফ রিপোর্টার : সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে সদর উপজেলার মৃগীডাঙ্গা গ্রামের নূরুল আমিন ফনুর দেয়া বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন একই গ্রামের মো. আব্দুর রশিদ সরদারের ছেলে মো. নাজমুল হোসেন (মিঠু)। শুক্রবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই প্রতিবাদ জানান।

লিখিত বক্তব্যে নাজমুল হোসেন মিঠু বলেন, আমি বৈকারী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধার স্বপক্ষের শক্তির সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ২০১৩ সালে জামায়াত-শিবিরের তান্ডবের সময়ও আমি স্বাধীনতার স্বপক্ষের দলের সাথে ছিলাম এবং এখনও কাজ করে যাচ্ছি। মৃগীডাঙ্গা গ্রামের মৃত জোনাব আলীর ছেলে নুরুল আমিন ফনুর সাথে জমাজমি, পুকুর ও ঘের নিয়ে ২০১০ সাল থেকে আমার বিরোধ চলে আসছিল।

২০১৫ সালের শেষের দিকে নুরুল আমিন ফনু জোরপূর্বক আমার পুকুরে মাছ ধরতে যায়। এসময় বাঁধা দিলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ও পরিবারের সদস্যদের নামে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করে। কিন্তু তার কোন অভিযোগ তদন্তে প্রমানিত হয়নি।

তিনি আরো বলেন, মৃগীডাঙ্গা বাজারে আমার একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ফুন অনেক সময় আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাকিতে মালামাল ক্রয় করে। কিন্তু বছর শেষে হালখাতার সময় কয়েকবার চিঠি দিলেও সে বাকি টাকা পরিশোধ করে না। বকেয়া টাকা চাইলে আমাকে বিভিন্ন মামলায় ফাসিয়ে দেয়ার হুমকি দেয় ফনু। এভাবে বিভিন্ন দোকান থেকে বাকিতে মালামাল কিনে সে টাকা দেয় না।

কেউ কিছু বললে তাকে মামলায় ফাসিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। বিগত হালখাতার আগে মৃগীডাঙ্গা বাজারে আমি বকেয়া টাকা চাইলে সে দিতে অস্বীকার করে। এনিয়ে তার সাথে আমার বাকবিতন্ডা হয় এবং আমাকে প্রকাশ্যে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। এর পর থেকে ফনু আমার ও পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে।

নাজমুল হোসেন মিঠু বলেন, আমার একটি মাছের ঘের রয়েছে। ২০০১ সাল থেকে অদ্যাবধি আমি সেখানে মাছ চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। গত ১০ ফেব্রুয়ারি নুরুল আমিন ফনু জোরপূর্বক আমার ঘের দখল করতে গেলে আমি সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করি।

এঘটনায় ফনু আমার উপর আরো ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন স্থানে হুমকি প্রদান করছে। এরই অংশ হিসাবে গত ৩ মার্চ সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে একটি সংবাদ সম্মেলনে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে ও ভিত্তিহীন তথ্য উপস্থাপন করেছে। সেখানে ফনুর দেয়া বক্তব্য বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমি তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এদিকে একই গ্রামের সার ও কীটনাশক ব্যবসায়ী এজদান বেপারি বলেন, মৃগিডাংগা বাজারে ৫০টি দোকান থাকলে ৪০টি দোকান থেকে বাকী নিয়ে তা পরিশোধ করেনা। বাজারের কমপক্ষে ৪০জন দোকানদার ফনুর কাছে টাকা পাবে। দোকানের পণ্য বিক্রির ন্যায্য টাকা চাইতে গেলে হামলা-মামলার ভয় দেখায়। পুলিশের কাছে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে নিরীহ গ্রামবাসীকে হয়রানী করা ফনুর অভ্যাসে পরিণত হয়েছে।

একই কথা বলেন বৃদ্ধ নূর মোহাম্মদ, শফিকুল ইসলাম, সংরক্ষিত ইউপি মেম্বর জামিলা খাতুন, এরশাদ আলী, নাজমুল হোসেন, শাহাদাত হোসেন, আকবর আলী, আবু জাফরসহ অর্ধ শতাধিক মানুষ।

তাদের প্রত্যেকের দাবি তারা নূরুল আমিন ফনুর কাছে টাকা পাবেন। টাকা চাইতে গেলে খেতে হয় মিথ্যা মামলা। তাদের অভিযোগ, আওয়ামী লীগ নেতা পরিচয় দিয়ে সরকারের সকল অর্জন মাটির সাথে মিশিয়ে দিচ্ছে এই নূরুল আমিন ফনু। এলাকায় পুলিশী হয়রানীর নাটের গুরু ফনুর অত্যাচার থেকে তারা রেহাই চান।

এলাকাবাসি বলেন, বর্তমানে এলাকা বিষিয়ে তুলেছেন নূরুল আমিন ফনু। আর অত্যাচার থেকে বাদ পড়েনি গরীব অসহায় চা বিক্রেতা থেকে শুরু করে আপন চাচাতো ভাইয়েরাও। ফন্দি ফিকির করে সাধারণ মানুষকে ফাঁদে ফেলে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় তার পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাকে রুখবে কে?

জমি জবর দখল থেকে শুরু করে চাঁদাবাজি, নারী কেলেঙ্কারীসহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগ গ্রামবাসির। বাড়ির নারীকেও জবর দখল কাজে ব্যবহার করতে কুণ্ঠাবোধ করেনা ফনু। আবু জাফর নামের এক ব্যক্তির ঘরে দখল করেছে নিজে দা হাতে দাঁড়িয়ে থেকে।

বৈকারী ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান অসলে জানান, নূরুল আমিন ফনুর কাছে মৃগিডংগা বাজারের কমপক্ষে অর্ধশত ব্যবসায়ী টাকা পাবে। এ সংক্রান্ত অসংখ্য অভিযোগ ইউনিয়ন পরিষদে আছে। ফনুকে নোটিশ করলে হাজির হয়না। পরে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে।

এছাড়া ফনু নিজে ঘরে আগুন দিয়ে অন্যকে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র করেছে। অস্ত্র ও মামলার ভয় দেখিয়ে জমি জবর দখল করা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তার কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুর্ণ হচ্ছে।

মৃগীডাঙ্গা গ্রামের নূরুল আমিন ফনুর অত্যাচার ও নির্যাতন থেকে সাধারণ মানুষকে রক্ষা করতে এবং তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2021 satkhiratimes24.com
Theme Customized By BreakingNews