আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শনিবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সামনের দিনগুলোতে আরো বেশী প্রাণহানির বিষয়ে আমেরিকানদের সতর্ক করেছেন। এদিকে বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা তিনলাখ ছাড়িয়ে গেছে। মারা গেছে এ পর্যন্ত ৮,৩০০ জন। তবে ইতালি ও স্পেনের পরিস্থিতি উন্নতির দিকে বলে জানা গেছে।
চীনে গত বছরের শেষে করোনার প্রাদুর্ভাবের পর বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১১ লাখ ৭০ হাজারেরও বেশি এবং মারা গেছে ৬৩,৪৩৭ জন।

এছাড়া বিশ্বের কোটি কোটি লোক লকডাউনের আওতায় রয়েছে। বন্ধ রয়েছে স্কুল, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। বিশ্ব অর্থনীতিতে যুক্ত হচ্ছে কোটি কোটি ডলারের ক্ষতির হিসাব।
হোয়াইট হাউসে ব্রিফিংকালে ট্রাম্প বলেন, যুক্তরাষ্ট্র খুবই কঠিন সময়ে প্রবেশ করতে যাচ্ছে।

বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানির ভয়াবহ পরিস্থিতি সম্পর্কে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, সম্ভবত আগামী সপ্তাহ হবে সবচেয়ে কঠিন সময়। এ সময়ে প্রচুর লোকের মারা যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

তবে তিনি বলেন, তাই বলে যুক্তরাষ্ট্র সারাজীবনের জন্যে বন্ধ থাকতে পারে না।

এদিকে ইতালির পরিস্থিতি কিছুটা ভালো হয়েছে বলে দাবি করছেন সে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ। শনিবার দেশটিতে নতুন মৃত্যুর সংখ্যা ৬৮১ জনে দাঁড়িয়েছে। যা এর আগের সপ্তাহে ছিল মোটামুটি এক হাজারের মতো।

এছাড়া স্পেনের অবস্থাও উন্নতির দিকে। সেখানেও প্রতিদিনের মৃতের সংখ্যা কমে এসেছে। পুরো লকডাউনে থাকা স্পেনে দ্বিতীয় দিনে মৃতের সংখ্যা কমে ৮০৯ জনে দাঁড়িয়েছে। দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা এখন ১১,৭৪৪ জন। আক্রান্তের হার কমা সত্তে¡ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানশেজ দেশটির লকডাউন ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন।

এদিকে, ফ্রান্সেও আগের দিনের তুলনায় মৃতের সংখ্যা কমেছে। শনিবার দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ৪৪১ জনে দাঁড়িয়েছে। এ সংখ্যা এর আগের দিন ছিল ৫৮৮ জন। ফ্রান্সে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭,৫৬০ জনে।

ব্রিটেনে করোনায় মোট আক্রান্ত ৪২ হাজার। এদের মধ্যে পাঁচ বছরের একটি শিশু সহ মারা গেছে ৪,৩০০ জনের বেশি।

এ প্রেক্ষাপটে রোববার ব্রিটেনের রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ব্রিটেন ও কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর উদ্দেশ্যে ব্যতিক্রমী এক ভাষণ দিতে যাচ্ছেন। ভাষণে তিনি মহামারি করোনা মোকাবেলায় জনগণকে জেগে ওঠার আহ্বান জানাবেন।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে করোনার মূলকেন্দ্র নিউইয়র্কে মাত্র একদিনে ৬৩০ জন মারা গেছে। গভর্ণর এন্ড্রু কওমো সামনের সময় আরো খারাপ যাবে বলে সতর্ক করেছেন। এ অঙ্গরাজ্যে মোট মারা গেছে ৩,৫৬৫ জন।

পরিস্থিতি মোকাবেলায় ট্রাম্প নিউইয়র্কে এক হাজার সেনাসদস্য মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছেন। এদের অধিকাংশ ডাক্তার ও নার্স।