আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ( ডব্লিউএইচও ) বলেছে, বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি পরিস্থিতি আরো খারাপ হচ্ছে। সংস্থাটি আত্মতুষ্টিতে ভোগার বিষয়েও সতর্ক করেছে।

গত বছর ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর এটি পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। করোনায় বিশ্বে এ পর্যন্ত মারা গেছে চার লাখ তিন হাজার লোক। আক্রান্ত অন্তত ৭০ লাখ লোক।

পূর্ব এশিয়ার পর ভাইরাসের মূল কেন্দ্র হয়ে ওঠে ইউরোপ। এখন ইউরোপকে ছাড়িয়ে গেছে আমেরিকা। সোমবার জেনেভায় সংস্থাটির প্রধান টেডরস আধানম গেব্রিয়াসিস ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ইউরোপের অবস্থার উন্নতি হলেও বিশ্বজুড়ে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে।

তিনি বলেন, গত ১০ দিনের মধ্যে ৯ দিনে এক লাখেরও বেশি লোকের সংক্রমিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। কিন্তু গতকাল এক লাখ ৩৬ হাজারেরও বেশি লোকের আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। একদিনে এ পর্যন্ত এ সংখ্যা সর্বোচ্চ।

আধানম আরো বলেন, রোববারের সংক্রমণের ৭৫ শতাংশের খবরই এসেছে ১০টি দেশ থেকে। এদের অধিকাংশই আমেরিকা ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশ।

তিনি আততুষ্টিতে ভোগার বিষয়ে সতর্ক করে বলেছেন, যেসব দেশে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে সেখানে আত্মতুষ্টিতেতে ভোগাটাই সবচেয়ে বড়ো হুমকি।

ডব্লিউএইচও প্রধান আরো বলেন, বিশ্বের অধিকাংশ লোক এখনও সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে। মহামারির মাত্র ছয়মাস পেরিয়েছে। কোন দেশের জন্যেই এখন ঢিলেমি করার সময় আসেনি।

যুক্তরাষ্ট্রে নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গ ফ্লয়েড হত্যাকে কেন্দ্র করে যে বিক্ষোভ চলছে তার প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, আমরা বিশ্বজুড়ে সকল প্রতিবাদ বিক্ষোভই যথেষ্ট নিরাপদভাবে করার জন্যে উৎসাহিত করছি।

এদিকে ডব্লিউএইচও বরাবরই সংক্রমিত লোকের খুব কাছে এসেছে এমন ব্যক্তিকে খুঁজে বের করার বিষয়ে অব্যাহতভাবে জোর তাগিদ দিয়ে আসছে।

ডব্লিউএইচও ১শ’ ১০টি দেশে ৫০ লাখেরও বেশি ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম পাঠিয়েছে বলে উল্লেখ করেন সংস্থাটির প্রধান। এছাড়া ডব্লিউএইচও ১শ’ ২৬টি দেশে ১২ কোটি ৯০ লাখেরও বেশি পিপিই পাঠানোর পরিকল্পনা করছে।