দেবহাটায় নওয়াপাড়া ইউনিয়নে শিমুলিয়া গ্রামের ইজিবাইক চালক মনিরুল ইসলামকে কয়েকদিন আগে শ্বাসরোধ করে নৃসংশ ভাবে হত্যা করা হয়।মনিরুলের স্ত্রী বর্তমানে জেলে।বাড়ীতে তার অসহায় দুই সন্তান।

একজনের বয়স চার বছর ও অন্যজনের আটকে বছর।সন্তানদের সার্বিক খোঁজ খবর নেয়ার জন্য মনিরুলের বাড়ীতে গেলেন দেবহাটা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সাতক্ষীরা জেলা শাখার সভাপতি জি.এম স্পর্শ।

স্পর্শ বলেন, আমার ও চার বছরের একটি সন্তান আছে। একজন মা হিসেবে আমাকে আজ খুব অপরাধী মনে হলো। মনে হাজারো প্রশ্ন জাগছে, জন্মদাত্রী মায়েরা কি খারাপ হয়? নাকি ? মনিরুলের মাসুম বাচ্চাদের তো কোন অপরাধ ছিলনা।

তাহলে কেন সৃষ্টিকর্তা তুমি তাদের এই পাহাড় সমান কষ্টে রেখেছো? আমি বাচ্চা দুটোকে সান্ত্বনা তো দুরের কথা ওদের চোখের দিকে তাকাতে পারিনি। শুধু কাছে ডেকে অনুভব করলাম এ কেমন নিষ্ঠুর পৃথিবী। পৃথিবীর আর কোন সন্তানের যেন এই পরিনতি না হয়।

সন্তান গুলোর জন্য আমার বুক ভরা দোয়া ভালোবাসা রইলো। আমি এই নিকৃষ্ট ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং প্রকৃত খুনীদের দৃষ্টান্ত শাস্তি কামনা করছি। মনিরুলের সন্তানদের জন্য ঈদের নতুন পোষাক ও খাদ্যসামগ্রী উপহার দেন স্পর্শ।