অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাজ্যে ক্রমবর্ধমান করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার বানানো করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের ডোজ বিতরণ শুরু হয়েছে। সোমবার বিতরণের জন্য প্রস্তুত প্রায় ৫ লাখেরও বেশি ডোজ।

দেশটির স্বাস্থ্যসচিব এটাকে দেশের ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের একটি ‘কার্যকর মুহূর্ত’ উল্লেখ করে বলেছেন, ভ্যাকসিনের ফলে সংক্রমণ কমে আসবে এবং ধীরে ধীরে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হবে।

তবে সেখানকার প্রধানমন্ত্রী সতর্কতা জানিয়ে বলেছেন, আরও কঠোর নিয়ম দরকার হতে পারে স্বল্প সময়ের মধ্যেই।

বরিস জনসন বলেন, যুক্তরাজ্যে আঞ্চলিক নিষেধাজ্ঞা আরও কঠোর হতে পারে, কারণ যুক্তরাজ্য এখন নতুন এবং দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাসের এমন ধরনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করছে।

নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড ও ওয়েলসে এখনও স্থানীয় লকডাউন চলছে। স্কটল্যান্ডের মন্ত্রিসভা পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ধারণের জন্য আলোচনায় বসবে। ডিপার্টমেন্ট অব হেলথ অ্যান্ড সোশ্যাল কেয়ার জানিয়েছে, ছয়টি হাসপাতালে ৫ লাখ ৩০ হাজার ডোজ সোমবার বিতরণের জন্য প্রস্তুত। পরবর্তী সপ্তাহের মধ্যে আরো কিছু ডোজ সেবাকেন্দ্রে সরবরাহ করা হবে।

ডিসেম্বরে যুক্তরাজ্যে অনুমোদন পায় অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন। এটি সাধারণ ফ্রিজের তাপমাত্রাতেই সংরক্ষণ করা যায়। ফলে সেটা বিতরণ ও সংরক্ষণ করা সহজ। এটির মূল্যও খুব কম। যুক্তরাজ্য ভ্যাকসিনটির ১০ কোটি ডোজ নিয়েছে, যেটা তাদের জনসংখ্যার জন্য যথেষ্ট।

প্রথমে কেয়ার হোমের বাসিন্দা, কর্মী এবং ৮০ বছরের বেশি বয়সীরা ভ্যাকসিন পাবেন। সম্মুখসারির এনএইচএস কর্মীরাও প্রথমে ভ্যাকসিন পাবেন। দেশজুড়ে ৭৩০টি টিকাকেন্দ্র তৈরি করা হয়েছে, শিগগিরই মোট টিকাকেন্দ্র হবে ১ হাজারের বেশি।

যুক্তরাজ্যে একদিনে এই ভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে প্রায় ৫৫ হাজার জন আর প্রাণ হারিয়েছে ৪৫৪ জন। সেখানে মোট আক্রান্ত শনাক্ত ২৬ লাখ ৫৪ হাজারের বেশি আর প্রাণ হারিয়েছে ৭৫ হাজারের বেশি মানুষ।