তোমাকে পাবার জন্য হে পিতা শতসাধনার পরে
তুমি ফিরে এলে সাড়েসাতকোটি কলিজা শীতল করে।
পাকিস্তানের কারাগারে ছিলে নয়মাস ধরে বন্দি
জীবন-মৃত্যুর মুখোমুখি থেকে করো নাই তুমি সন্ধি।
তুমি বাঙালি জাতির পিতা; তুমি আমাদের প্রাণ
তাই তো বিশ্ব তোমাকে দিয়েছে, বিশ্বনেতার মান।
কত যে সাধনা, কত প্রার্থনা, মসজিদ মন্দিরে

কত দান, কত মাগিছে মানত, তুমি যেন আসো ফিরে।
তোমাকে দেখার জন্য হে পিতা জনতা সারি সারি
তাদের দেখিয়া খুশিতে তোমার ঝড়েছিল আঁখিবারি।

পথের দিশারী, তুমি কাণ্ডারি, কালবৈশাখী ঝড়
আকাশ-বাতাস কাঁপিল সেদিন, শুনিয়া কণ্ঠস্বর।
হিমালয়সম হিমগিরি তুমি দুর্জয় প্রতিরোধ
ত্রিশলক্ষ শহিদের তুমি নির্মম প্রতিশোধ ।

পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে খুশিতে পাগল-পারা
সাতকোটি বাঙালি খুশিতে কেঁদেছে নয়নে অশ্রুধারা।
যে মাটির কোলে জন্ম নিয়েছো, সেই মাটি ভালবেসে
বিজয় পতাকা ছিনিয়ে এনেছো ফিরেছো বীরের বেশে।
বাহাত্তরের ১০ই জানুয়ারি ধূলায় নামিল শশী
পুষ্পবৃষ্টি ঝরেছিল তাই সকলের মুখে হাসি।

তোমাকে হেরিয়া বনের পাখিরা গেয়েছে সেদিন গান
তোমার আগমনে হেসেছে সেদিন পিতাহারা সন্তান।
স্বদেশের প্রতি ভালবাসা তব বিশ্বপ্রেমের নীতি
বিশ্বনেতারা তাই দেখে খুশি হয়েছে তোমার প্রতি।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় হে বিশ্বনেতা
বাঙালি তোমাকে ভুলবে না কভু, তুমি যে জাতির পিতা।